|

৩শত টাকার চালের জন্য চেয়ারম্যানকে দিতে হয় ২শত টাকা কর

প্রকাশিতঃ ৮:৫০ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

৩শত টাকার চালের জন্য চেয়ারম্যানকে দিতে হয় ২শত টাকা কর

মোঃ কামাল, ময়মনসিংহঃ “শেখ হাসিনার বাংলাদেশ ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ”এই শ্লোগানকে সামনে রেখে খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত হত দরিদ্রদের জন্য স্বল্প মূল্যে খাদ্য শষ্য বিতরণ কর্মসূচীটি আজ অনিয়মে ভরপুর ময়মনসিংহের ৯ নং খাগডহর ইউনিয়ন।

সরেজমিনে গিয়ে এমন পরিস্থিতি দেখে মিডিয়া কর্মীরাও হতাশ। ২৪ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ সদর উপজেলাধীন ৯ নং খাগডহর ইউনিয়নে ৮ নং ওয়ার্ড বেগুনবাড়ী বাজার সংলগ্ন মারুফ এন্টার প্রাইজের ডিলার মোমেন মুবিন এই চাউল বিতরণ করে। এসব অনিয়ম দূর্নীতিতে উত্তেজিত জনতার বাধার মূখে পড়ে চাল দেওয়া বন্ধ করে পালিয়ে যায় ডিলারের নিয়োজিত কর্মচারীরা।

পরে জানা যায় অত্র ওয়ার্ডের মেম্বার ও ডিলার মোমেন মুবিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খান নান্নুর নির্দেশেই প্রত্যেকজনের কাছ থেকে দুইশত টাকা কর নিচ্ছে একটি রশিদের মাধ্যমে যা জমা হচ্ছে চেয়ারম্যানের কাছে।

স্থানীয় কৃষক জামাল উদ্দিন জানান ৩শ টাকার বিনিময়ে ৩০ কেজি চাউল দেওয়ার কথা থাকলেও এখানে প্রত্যেকটি অসহায় মানুষদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ২শ টাকা করে ট্যাক্স বাবদ নেওয়া হচ্ছে রশিদের মাধ্যমে। এই টাকা না দিলে তারা কোন প্রকার চাল দিবে না বলে জানিয়ে দেয়। আর এই বিষয়টি কাউকে জানালে চাল দেওয়া তো হবেই না উল্টো হুমকির মুখে পড়তে হবে।

নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই বেপরোয়া এই চেয়ারম্যান এর বিরুদ্ধে অত্র ইউনিয়নের একাধিক মেম্বার ও মহিলা মেম্বারাও তার প্রতি অনাস্থার প্রক্রিয়া গ্রহণ করেন। তাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠক করে এই চেয়ারম্যান সমাধান করেছে কিন্তু মেম্বার ও মহিলা মেম্বাদের চাপা ক্ষোভ এখনও বিরাজমান। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে রয়েছে অসহায়, পঙ্গু ও বিধাব মহিলাদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ। এ নিয়ে বেশ কয়েকবারও হয় মানববন্ধন।

চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খান নান্নুর বেপরোয়া আচরনে ক্ষিপ্ত থানা-পুলিশও । সম্প্রতি কিছু দিন পূর্বে অত্র ইউনিয়নে একটি অপমৃত্যুকে ঘিরে থানা-পুলিশের সাথে তুমুল বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন নান্নু । বিনা ময়না তদন্তে লাশ দাফনের পক্রিয়া করেন । বাধা দেন কোতোয়ালী পুলিশ আইন আছে কিন্তু মানতে নারাজ নান্নু । ঘটনাস্থলে একজন এসআই উপস্থিত হলে তাকে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ না দিয়ে খারাপ আচরণ করে তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন চেয়ারম্যান।

পরে কোতোয়ালী মডেল থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ মাহ্মুদুল ইসলাম তাকে তলব করলে দুই ঘন্টা বিলম্ব করে থানায় আসেন । থানাতেও অফিসার ইনচার্জের সাথে তর্কে জড়িয়ে যান এই চেয়ারম্যান। পরে বেশ কিছুক্ষন তিনি থানা-হাজতে থাকে নজরবন্দী হিসেবে। ততখনে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে এলাকায় নান্নু চেয়ারম্যান গ্রেফতার।

রাত ১টায় ময়মনসিংহ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলোচনার মাধ্যমে সুরাহা করে নিয়ে যান বির্তর্কিত এই নান্নু চেয়ারম্যানকে
অনিয়ম দূর্নীতি আর অতিরিক্ত টাকা গ্রহনের বিষয়ে চেয়ারম্যান নান্নুর সাথে ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে গিয়ে কথা বললে তিনি জানান, আমার ইউনিয়ন পরিষদের নাম নকল করে যে কেউ এই কার্যকলাপ করতে পারে। চাল দেওয়ার সাথে করের কোন সম্পর্ক নাই। আর আমি অতিরিক্ত ২শ টাকা গ্রহনের কথা বলি নাই তবে প্রতিটি মানুষ কর দিলে ভালো হবে।

তিনি আরোও জানান, আমি এই আমি ঘটনা শোনার পর চাল দেওয়া আর দুইশত টাকা গ্রহণ করা বন্ধ করে দিয়েছে। আমাকে ট্যাক্স অফিসার তাদের অফিসে তলব করেছে আমি সেখানে যাচ্ছি। যে টাকা উত্তোলন হয়েছে তা আমি আমার লোক দিয়ে ব্যাংকে পাঠিয়ে দিয়েছি।

দেখা হয়েছে: 4781
ফেইসবুকে আমরা

সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
মোবাইলঃ ০১৭৩৩-০২৮৯০০
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৭৮৫৫৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অস্থায়ী কার্যালয়ঃ ১নং সি. কে ঘোষ রোড, ৩য় তলা, ময়মনসিংহ।
(৭১ টিভির আঞ্চলিক কার্যালয়)।

The use of this website without permission is illegal. The authorities are not responsible if any news published in this newspaper is defamatory of any person or organization. Author of all the writings and liabilities of the author