|

করোনা আপডেট
আক্রান্ত

৫৫০,৩৩০

সুস্থ

৫০৩,০০৩

মৃত্যু

৮,৪৬২

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২,৭১৪
  • বরগুনা ১,০০৮
  • বগুড়া ৯,২৪০
  • চুয়াডাঙ্গা ১,৬১৯
  • ঢাকা ১৫০,৬২৯
  • দিনাজপুর ৪,২৯৫
  • ফেনী ২,১৮০
  • গাইবান্ধা ১,৪০৩
  • গাজীপুর ৬,৬৯৪
  • হবিগঞ্জ ১,৯৩৪
  • যশোর ৪,৫৪২
  • ঝালকাঠি ৮০৪
  • ঝিনাইদহ ২,২৪৫
  • জয়পুরহাট ১,২৫০
  • কুষ্টিয়া ৩,৭০৭
  • লক্ষ্মীপুর ২,২৮৩
  • মাদারিপুর ১,৫৯৯
  • মাগুরা ১,০৩২
  • মানিকগঞ্জ ১,৭১৩
  • মেহেরপুর ৭৩৯
  • মুন্সিগঞ্জ ৪,২৫১
  • নওগাঁ ১,৪৯৯
  • নারায়ণগঞ্জ ৮,২৯০
  • নরসিংদী ২,৭০১
  • নাটোর ১,১৬২
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৮১১
  • নীলফামারী ১,২৮০
  • পঞ্চগড় ৭৫৩
  • রাজবাড়ী ৩,৩৫২
  • রাঙামাটি ১,০৯৮
  • রংপুর ৩,৮০৩
  • শরিয়তপুর ১,৮৫৪
  • শেরপুর ৫৪২
  • সিরাজগঞ্জ ২,৪৮৯
  • সিলেট ৮,৮৩৭
  • বান্দরবান ৮৭১
  • কুমিল্লা ৮,৮০৩
  • নেত্রকোণা ৮১৭
  • ঠাকুরগাঁও ১,৪৪২
  • বাগেরহাট ১,০৩২
  • কিশোরগঞ্জ ৩,৩৪১
  • বরিশাল ৪,৫৭১
  • চট্টগ্রাম ২৮,১১২
  • ভোলা ৯২৬
  • চাঁদপুর ২,৬০০
  • কক্সবাজার ৫,৬০৮
  • ফরিদপুর ৭,৯৮১
  • গোপালগঞ্জ ২,৯২৯
  • জামালপুর ১,৭৫৩
  • খাগড়াছড়ি ৭৭৩
  • খুলনা ৭,০২৭
  • নড়াইল ১,৫১১
  • কুড়িগ্রাম ৯৮৭
  • মৌলভীবাজার ১,৮৫৪
  • লালমনিরহাট ৯৪২
  • ময়মনসিংহ ৪,২৭৮
  • নোয়াখালী ৫,৪৫৫
  • পাবনা ১,৫৪৪
  • টাঙ্গাইল ৩,৬০১
  • পটুয়াখালী ১,৬৬০
  • পিরোজপুর ১,১৪৪
  • সাতক্ষীরা ১,১৪৭
  • সুনামগঞ্জ ২,৪৯৫
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
শিশুশিক্ষার সাতকাহন—শরীফুল্লাহ মুক্তি

প্রকাশিতঃ ১০:৪৩ অপরাহ্ন | নভেম্বর ০৫, ২০২০

শিশুশিক্ষার সাতকাহন---শরীফুল্লাহ মুক্তি

সারা পৃথিবীতে এখনও প্রতিনিয়ত তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনা ভাইরাস। কোভিড-১৯ ভাইরাসের কারণে সারা বিশে^ আজ মহামারি দেখা দিয়েছে। সবাই এখন আতঙ্কগ্রস্ত ও দিশেহারা। দিন দিন যেন সময় কঠিন থেকে কঠিনতর হচ্ছে। করোনাজনিত এই সংকটকালে আমরা না পারছি আমাদের শিশুদের স্বাস্থ্যের প্রতি যথাযথ নজর দিতে, না পারছি লেখাপড়ার দায়িত্বটা সঠিকভাবে পালন করতে। দীর্ঘদিন ধরে আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো বন্ধ আছে। এ অবস্থায় বর্তমানে বিদ্যালয়সমূহ কোমলমতি শিশুদের শিখনে প্রত্যক্ষ কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না বিদ্যালয়গুলো।

ফলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হতে চলেছে । ইতোমধ্যে এ বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খোলার তেমন কোনো লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে দফায় দফায় ছুটি বাড়ানো হ্েচ্ছ। শিক্ষাবর্ষও প্রায় শেষের দিকে। প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে বার্ষিক পরীক্ষা ছাড়াই প্রমোশন দেয়ার চিন্তাভাবনা করছে সরকার।

একটি সুন্দর সমৃদ্ধ আগামী পৃথিবী গড়ে তোলার জন্য দরকার প্রাণপ্রাচুর্যে ভরপুর সুস্থ সুন্দর শিশু। মানবসভ্যতা ও সংস্কৃতি বিকাশের ধারা নির্ভর করছে আজকের শিশুর ওপর। শিক্ষা প্রতিটি শিশুর জন্মগত মৌলিক অধিকার। আর প্রাথমিক শিক্ষা হচ্ছে শিক্ষার প্রারম্ভিক স্তর। বাংলাদেশের সংবিধানসহ আন্তর্জাতিক সনদসমূহেও এ বিষয়টি স্বীকৃত। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানে ১৭ নং অনুচ্ছেদে সবার জন্য একই পদ্ধতির গণমুখী ও সর্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে এবং সকল শিশুর জন্য অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষার ব্যবস্থা করতে রাষ্ট্রের দায়বদ্ধতার কথা বলা হয়েছে।

এ লক্ষ্যে ১৯৯০ সালে আইন প্রণয়ন করে বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামুলক করা হয় এবং ১৯৯৩ সালের জানুয়ারি থেকে এ আইন পুরোপুরি কার্যকর করা হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষাকে যুগোপযোগী ও মানসম্মত করার লক্ষ্যে বিগত দশকসমূহে সরকার যে সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সেগুলোর মধ্যে ২০০৩ সালের পৃথক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা, অবৈতনিক প্রাথমিক শিক্ষা, শিশুদের জন্য বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক সরবরাহ করার ব্যবস্থা, দরিদ্র সুবিধাবঞ্চিত পরিবারে শিশুদের জন্য সরকার ২০০০ সাল হতে ২০০১ সাল পর্যন্ত শিক্ষার বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচি গ্রহণ ও ২০০২ সাল হতে শিক্ষার বিষয়ে উপবৃত্তি কর্মসূচি কার্যক্রম বাস্তবায়ন, নারী শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে ৬০% কোটা প্রবর্তন, দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন, মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি ও প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোকে একাডেমিক সহায়তা প্রদানের জন্য উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা রিসোর্স সেন্টার প্রতিষ্ঠা (ইউআরসি) করা অন্যতম।

বর্তমানে প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে শতভাগ ভতি নিশ্চিতকরণ, একীভূত শিক্ষা ও প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালুকরণ, ২০১১ সাল হতে সম্পূর্ণ নতুন পাঠ্যপুস্তক বিনামূল্যে শিক্ষা-বছরের প্রথম দিনই ‘বই উৎসব’ এর মাধ্যমে তুলে দেয়া, নতুন ভবন নির্মাণ, পুনঃনির্মাণ, সংস্কার, নিরাপদ পানীয়জলের ব্যবস্থা, স্যানিটেশন ও ওয়াশব্লক স্থাপনসহ অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের মেধাযাচাই ও মূল্যায়নের জন্য ২০০৯ সাল হতে সারাদেশে অভিন্ন প্রশ্নপত্রের মাধ্যমে ‘প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী’ পরীক্ষা গ্রহণ, শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের পাশাপাশি তাদের শারীরিক ও মানসিক উৎকর্ষ সাধন ও নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশের জন্য বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ২০১৪ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের জীবনমান, প্রশাসনিক উন্নয়ন ও সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিতে প্রধান শিক্ষক পদটিকে দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তার পদমর্যাদায় উন্নীত করে যুগের চাহিদা মিটানো হয়। ২০১৩ সাল থেকে পিটিআইগুলোতে ধাপে ধাপে এক বছর মেয়াদি সিইনএড কোর্সের পরিবর্তে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের আওতায় দেড় বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন প্রাইমারি এডুকেশন (ডিপিএড) কোর্স চালু করা হয়েছে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে পর্যায়ক্রমে ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া প্রদান করা হচ্ছে, পাশাপাশি ইন্টারনেট সংযোগ করে আইসিটি বেইজড শ্রেণিকক্ষ চালু করার উদ্যোগও গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতি বছর প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও কর্মকর্তাসহ তেরটি ক্ষেত্রে ‘প্রাথমিক শিক্ষা পদক’ প্রদান করা হচ্ছে। শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের কাজের স্বীকৃতি প্রদানের জন্য বৈদেশিক প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা-সফরের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতের জন্য চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির বাস্তবায়ন কাজ চলমান আছে। প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে বর্তমান সরকারের ইতিবাচক মনোভাবের কোনো কমতি নেই। তারপরও শিশুশিক্ষা নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনার যেন কোনো কমতি নেই।

রাষ্ট্র সবার জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করে আধুনিক, বৈষম্যহীন ও অভিন্ন প্রাথমিক শিক্ষাব্যবস্থা চালু রাখবে এমন আকাক্সক্ষা সকলের। কিন্তু রাজনৈতিক বাস্তবতা ও বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে বিভাজিত লক্ষ্য ও কর্মসূচি নিয়ে বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের প্রাথমিক শিক্ষাব্যবস্থা চালু আছে। বৈষম্যহীন, মানসম্মত ও একীভূত প্রাথমিক শিক্ষা অর্জনে সরকারের নিরলস প্রচেষ্টা সত্ত্বেও বিভিন্ন রাজনৈতিক দর্শন, নৈতিকতা ও মূল্যবোধের অবক্ষয়, ন্যায়ভ্রষ্টতার আধিপত্য, অঙ্গীকার রক্ষায় সদিচ্ছার অভাব ইত্যাদি কারণে স্বাধীনতার এত বছর পরও এদেশে তা যথাযথভাবে বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণে যে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয় কাজ করছে তার মধ্যে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নব্য সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (সাবেক নিবন্ধনকৃত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অনিবন্ধিত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়), হাই স্কুল সংযুক্ত প্রাথমিক বিদ্যালয়, পিটিআই সংলগ্ন পরীক্ষণ বিদ্যালয়, ইবতেদায়ী মাদ্রাসা, হাই মাদ্রাসা সংযুক্ত ইবতেদায়ী মাদ্রাসা, কিন্ডার-গার্টেন, এনজিও পরিচালিত প্রাথমিক বিদ্যালয়, আনন্দ স্কুল, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল অন্যতম। এছাড়াও আছে মক্তব, কওমি শিক্ষা, গ্রামভিত্তিক শিক্ষা ইত্যাদি। এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষাক্রমও ভিন্ন ভিন্ন; পাশাপাশি শিক্ষকদের যোগ্যতা ও মান এক রকম নয়।

আমাদের প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে আরেকটি বড় সমস্যা হলো যারা প্রাথমিক স্তরে শিক্ষকতা করতে আসেন তারা কোনোরকম পূর্ব-অভিজ্ঞতা ছাড়াই শিক্ষকতা করতে আসেন। সরকারের বিভিন্ন বিভাগে (স্বাস্থ্য, কৃষি, প্রাণিসম্পদ বা যে কোনো বিভাগে টেকনিকেল পেশায়) চাকরি করতে হলে তাকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট বিষয়ে শিক্ষিত ও কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন হতে হয়। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ন্যূনতম প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা ডিপ্লোমাধারী হতে হয়। প্রাথমিক শিক্ষাস্তরে শিক্ষকতা একটি জটিল পেশা সত্ত্বেও এ বিষয়ে কারিগরি জ্ঞান বা কোনোরকম পূর্ব-অভিজ্ঞতা ছাড়াই শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়। প্রাথমিক শিক্ষা হলো শিক্ষার মূল ভিত্তিÑ এ সময়টা খুবই স্পর্শকাতর। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণের অবশ্যই শিশু-মনোবিজ্ঞান ও পেড্যাগোগি সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা থাকা আবশ্যক।

দেশের অধিকাংশ প্রাথমিক বিদ্যালয়েই প্রতি শ্রেণিতে শিশুসংখ্যা গড়ে ৫০ থেকে ৬০ জন বা এরও বেশি। কোনো কোনো প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতিটি শ্রেণিতেই শিশুসংখ্যা ৭০/৮০ জনের বেশি। আবার অনেক বিদ্যালয়ে বিভিন্ন শ্রেণিতে ১০০+ শিক্ষার্থীও পাওয়া যায়। শ্রেণিতে শিশুসংখ্যা ৪০ জনের অধিক হলেই আমরা ঐ ধরনের শ্রেণিকে অধিক শিশু সংবলিত শ্রেণি বলে থাকি। একজন শিক্ষকের পক্ষে অধিক সংখ্যক শিশু সংবলিত শ্রেণিতে মানসম্মত শিখন-শেখানো কার্যক্রম পরিচালনা করা কষ্টকর।

আমাদের দেশে প্রতিটি শিশুর হাতে শিক্ষাবছরের প্রথম দিনেই নতুন পাঠ্যপুস্তক তুলে দেয়া হয় বই উৎসবের মাধ্যমেÑ এটি একটি মাইলফলক। কিন্তু পাঠ্যপুস্তকের মান, তথ্য-বিভ্রান্তি, সংযোজন, বিয়োজন, মুদ্রণক্রটিÑ এ ধরনের বিশেষ কিছু বিষয় প্রতি বছরই জনমনে নানা সংশয় সৃষ্টি করে। প্রতি বছর নতুন বই এলেই তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

বিগত দশকে প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহের ব্যাপক অবকাঠামোগত উন্নয়ন সাধন হলেও এখনও গ্রামের অনেক প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহের অবকাঠমোগত অবস্থা ভালো নয়। অনেক বিদ্যালয়ে নেই পাকা দালান, নেই প্রয়োজনীয় সংখ্যক আসবাবপত্র (চেয়ার, টেবিল, বেঞ্চ) নেই শৌচাগারের সুব্যবস্থা, নেই শিশুদের উপযোগী খেলার মাঠ, নেই পানীয়জলের সুব্যবস্থা। একটি দুই শিফটের বিদ্যালয়ে কমপক্ষে পাঁচটি কক্ষ থাকা জরুরি। একটি অফিস কক্ষ, দুইটি কক্ষ প্রাক-প্রাথমিক ও পঞ্চম শ্রেণির জন্য নির্ধারিত, বাকি দুইটি কক্ষে প্রথম শিফটে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণি এবং দ্বিতীয় শিফটে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য।

প্রান্তিক, দরিদ্র শ্রমজীবী ও কৃষিজীবী পরিবারের শিক্ষার্থীর একাংশ সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে (উপবৃত্তি, স্কুল ফিডিং) বিদ্যালয়ে ভর্তি হয় ঠিকই কিন্তু শিক্ষাসেবা গ্রহণের জন্য মানসিকভাবে তৈরি থাকে না। আর প্রাতিষ্ঠানিক পৃষ্ঠপোষকতাই এসব ছেলে-মেয়ের একমাত্র অবলম্বন। শিক্ষাকগণের নির্দেশনায় কোনো ঘাটতি থাকলে তা সংশোধনের কোনো সুযোগ অভিভাবকদের কাছ থেকে পাওয়া যায় না। তাছাড়া পাঠদান আনন্দময় না হলে হতাশাগ্রস্ত হয়ে ঝরে পড়ার ঝুঁকির মধ্যে থাকে এই শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে ভাসমান শিশু, শ্রমজীবী শিশু, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু, পথশিশু, দরিদ্র পরিবারের শিশুরা সব সময়ই ঝরে পড়ার আশঙ্কার মধ্যে থাকে।

শহরের দুই-চারটি নামিদামী সরকারি/বেসরকারি স্কুলগুলোতে ভর্তির জন্য অভিভাবকেরা উদগ্রীব হয়ে থাকেন। এই স্কুলগুলোতে তাঁদের সন্তানকে ভর্তির জন্য রীতিমতো যুদ্ধে অবতীর্ণ হন। আর এই স্কুলগুলো সরকারি নির্দেশ অমান্য করে প্রচুর টিউশন ফি হাতিয়ে নিচ্ছে। এছাড়া এসব স্কুলগুলোর ভর্তি-বাণিজ্যের অভিযোগও নেহাত কম নয়।

সারাদেশে কোচিংবাণিজ্য বেপরোয়া আকার ধারণ করেছে। একশ্রেণির তথাকথিত শিক্ষক লাগামহীন কোচিংবাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। কোমলমতি শিশুদের পরীক্ষায় নম্বর কম দিয়ে, শারীরিক-মানসিক নির্যাতন করে, বিভিন্ন কলাকৌশল অবলম্বন করে এই শ্রেণির শিক্ষকরা তাদের কাছে শিক্ষার্থীদের পড়তে বাধ্য করছেন। প্রাথমিক স্তরের কোমলমতি শিশুরাও এ থেকে বাদ যাচ্ছে না। শিক্ষকদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকেরা। প্রাইভেট পড়ানো এবং কোচিং পরিচালনার ক্ষেত্রে সরকারি নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও তা কোথাও প্রতিপালিত হচ্ছে না। অনেক ক্ষেত্রে শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় মেধা-সামর্থ্যরে অনুপস্থিতি গাইড ও কোচিং বাণিজ্যের বিস্তারকে ত্বরাম্বিত করেছে।

বর্তমান প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে বিভিন্ন মহলের মধ্যে দ্বিধাবিভক্তি আছেÑ এমনকি আমাদের নীতিনির্ধারকদের মধ্যেও। এ নিয়ে বিভিন্ন স্তরে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা রয়েছে। তাছাড়া পঞ্চম শ্রেণির পরীক্ষা (এ বছর করোনা মহামারির জন্য বাদ দেয়া হয়েছে) এত সমারোহে বিশ্বের খুব কম দেশেই অনুষ্ঠিত হয়Ñ তাও উন্নত দেশে নয়। বিশেষজ্ঞগণের একাংশ মনে করেন এই পরীক্ষার আয়োজন একদিকে শিশুদের আনন্দময় পাঠগ্রহণের পরিসরকে সংকুচিত করছে, অপরদিকে এই পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে প্রাইভেট-কোচিং, গাইড ও প্রশ্নফাঁস সিন্ডিকেট সক্রিয় হয়ে উঠছে। আর অভিভাবকগণের উৎকণ্ঠা-তো আছেই।

সরকার প্রাথমিক শিক্ষা অবৈতনিক করলেও বাস্তবে বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যয়বহুল হয়ে গেছে। এখন সবাই পাস চায়, প্রকৃত জ্ঞান চায় না। শিক্ষার গুণগত মান যাই হোক না কেন সংখ্যাগত মান বৃদ্ধিতে শিক্ষাসংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও সবসময় তৎপর।

দেশের বিদ্যমান শিক্ষাব্যবস্থায় পাশের হার বাড়লেও শিক্ষার্থীরা সঠিকভাবে বিকশিত হচ্ছে কিনা এ নিয়ে মতভেদ আছে। অনেকে মনে করেন শিক্ষার্থীরা সার্টিফিকেট অর্জন করছে ঠিকই কিন্তু নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধের জায়গাটা ফাঁকাই থেকে যাচ্ছে। এ থেকে বেরিয়ে আসতে না পারলে দেশ ও জাতি গভীর সামাজিক সংকটের মুখে পতিত হতে পারে।

অনেক শিক্ষকের মধ্যে পেশাদারিত্বের অভাবও ব্যাপকভাবে পরিলক্ষিত হয়। শিক্ষকের মেধা, যোগ্যতা, পেশার প্রতি নৈতিক বিশ^স্ততা ও ইতিবাচক মনোভাব শিক্ষার্থীর শিখন-প্রক্রিয়ায় প্রত্যক্ষ প্রভাবক হলেও শিক্ষক যেন পুরোটা দিচ্ছেন না। অন্যদিকে শিক্ষকের নিম্ন বেতনস্কেল, সামাজিক মর্যাদার অভাব উচ্চশিক্ষিত ও যোগ্যতর প্রার্থীদের এ পেশায় আকৃষ্ট করছে না। এমনকি অধুনা নিযুক্ত উচ্চতর যোগ্যতাসম্পন্ন শিক্ষকগণও হীনম্মন্যতায় আক্রান্ত। কর্মরত শিক্ষকদের আস্থা ও ব্যক্তিত্বের সংকট, পেশাদারিত্বের অভাব শিক্ষার্থীর স্বাভাবিক বিকাশে বিঘ্ন সৃষ্টি করে।

শিশুর নৈতিক ও মানবিক গুণাবলী বিকাশসহ সুশিক্ষা প্রাপ্তির গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র হলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শিক্ষক, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং অভিভাবক সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে যাতে কওে শিক্ষা শিক্ষার্থীর সুপ্ত-প্রতিভা বিকাশ ও সৃজনশীল চিন্তার প্রসার ঘটাতে পারে। শিক্ষার্থীর সৃজনশীলতা বা স্বাভাবিক চিন্তাচেতনা বাধাগ্রস্ত হয় এমন কিছু করা যাবে না। জীবনের শুরুতে চিন্তাচেতনার স্বাভাবিক ধারা বাধাগ্রস্ত হলে তা থেকে বৈপরীত্য জন্ম নেয়। তাই শিক্ষাব্যবস্থার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ স্তরে অপেক্ষাকৃত কম যোগ্য ও অপ্রস্তত শিক্ষক নিযুক্ত হয়ে পরেছেন কিনা খতিয়ে দেখতে হবে। ডিপিএড/সিইনএড প্রশিক্ষণ উন্মুক্ত করে প্রাথমিক স্তরে ডিপিএড/সিইনএড প্রশিক্ষণধারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন। এতে সরকারের আর্থিক সাশ্রয় হবে এবং বিদ্যালয়গুলোরও শিক্ষক-ভোগান্তি কমবে। শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের মতো গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় যোগ্য ও দক্ষ লোকদের বসাতে হবে। শিশুর বয়স, মেধা ও দৈহিক সামর্থ্য অনুযায়ী পাঠ্যপুস্তকের সংখ্যা, গুণগতমান ও বিষয়বস্তুর পরিধি নিয়ে বিস্তর গবেষণা করে শিক্ষাক্রমকে ঢেলে সাজাতে হবে। পরিবর্তিত বিশ^ব্যবস্থা, জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রসার, সৃজনশীলতা, নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধ, দেশপ্রেম সৃষ্টির পাশাপাশি উগ্রবাদ ও নৈতিক-মানবিক অবক্ষয়ের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার মতো নতুন নতুন বিষয়গুলোকে মাথায় রেখে শিক্ষাক্রমকে নতুন করে সাজানো সময়ের দাবি। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রয়োজনীয় সংখ্যক শিক্ষক নিয়োগ ও সমন্বয় করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনুপাত আদর্শ পর্যায়ে নিয়ে আসা জরুরি। বিদ্যালয়কে ভীতিকর নয়, আনন্দের জায়গায় পরিণত করতে হবে। বিদ্যালয় যেন শিশুদের কাছে স্বপ্নের ঠিকানায় পরিণত হয়। সেখানে যেন শিশুরা আনন্দঘন পরিবেশে লেখাপড়া করার সুযোগ পায়। ভাসমান শিশু, শ্রমজীবী শিশু, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু, পথশিশু, দরিদ্র পরিবারের শিশুরা সব সময়ই ঝরে পড়ার আশঙ্কার মধ্যে থাকে। এ সব দরিদ্র জনগোষ্ঠীর অসহায় সন্তানদের সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের আওতায় এনে ঝরেপড়া রোধকল্পে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। প্রাথমিক শিক্ষায় একাডেমিক পড়াশোনার প্রতি গুরুত্ব কমিয়ে দেশপ্রেম, নৈতিক ও মানবিক শিক্ষার প্রতি বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিত।

পাশাপাশি জীবনমুখী শিক্ষা, কর্মমুখী শিক্ষা, সৃজনশীল কাজ, দলগত কাজ, সামাজিক কার্যক্রম, সহযোগিতামূলক শিক্ষণ, দেশপ্রেমের প্রতি উদ্বুদ্ধ করা, বাস্তব জীবনভিত্তিক বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের মতো বিষয়গুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া দরকার। পোর্ট-ফলিও এবং অ্যানেকডোটাল নোটের মাধ্যমেও শিশুদের মূল্যায়নের সুযোগ রাখা উচিত। বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থায় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বা বার্ষিক পরীক্ষায় কোনো শিক্ষার্থী শারীরিক অসুস্থতা বা দুর্ঘটনাজনিত কারণে একটি বিষয়ে পরীক্ষা না দিতে পারলেই তার সমাপনী পরীক্ষা পাশ বা উপরের শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু এটি যুক্তিসঙ্গত নয়। এতে শিক্ষার্থীর একটি বছর শুধু শুধু নষ্ট হয়ে যায়। এ কারণে দরিদ্র অভিভাবকেরা অনেক সময় সন্তানের পড়ালেখা বন্ধ করে দেন। তাই প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে পোর্ট-ফলিও এবং অ্যানেকডোটাল নোট বাধ্যতামূলক করে কোনো শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে এ ধরনের সমস্যা দেখা দিলে তাদের পোর্ট-ফলিও এবং অ্যানেকডোটাল নোটের মাধ্যমে মূল্যায়নের সুযোগ রাখা উচিত।

প্রাথমিক শিক্ষায় বর্তমানে সামষ্টিক মূল্যায়নের প্রতি বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। কিন্তু যোগ্যতাভিত্তিক শিক্ষাক্রম সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য সামষ্টিক মূল্যায়নের চেয়ে গাঠনিক, অনানুষ্ঠানিক ও ধারাবাহিক মূল্যায়নের প্রতি জোর দেয়া জরুরি। কোচিংবাণিজ্য ও গাইড বইয়ের বিস্তার বন্ধের লক্ষ্যে সর্বপ্রথম অভিভাবকদের এগিয়ে আসতে হবে। পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি ও আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। প্রত্যেক শিক্ষককে কোচিং পরিচালনা সংক্রান্ত সরকারি নীতিমালা মানতে বাধ্য করতে হবে। শিক্ষকদের সামাজিক মর্যাদার বৃদ্ধির জন্য দ্রুত স্বতন্ত্র বেতনস্কেল প্রবর্তন করা উচিত। উচ্চশিক্ষিত-মেধাবী-যোগ্য প্রার্থীদের এ পেশায় আকৃষ্ট করার জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বাড়িয়ে দেয়া উচিত। মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকল্পে শিক্ষকগণের জন্য যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। শ্রেণিকক্ষে তথ্যপ্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে শ্রেণি-পাঠদান আর্কষণীয় করার জন্য বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন ধরনের স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ চলমান রাখতে হবে। শিক্ষকদের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরিতে উদ্বুদ্ধকরণ, শিক্ষক-অভিভাবক-শিক্ষার্থীদের দৃষ্টিভঙ্গিতে ইতিবাচক পরিবর্তনের জন্য বিভিন্ন ধরনের সেমিনার, ওয়ার্কশপ ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করতে হবে। মানসম্মত শিক্ষক তৈরিতে উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে সারা বছর বিভিন্ন স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ চলমান রাখতে হবে। প্রশিক্ষণের মান বজায় রাখার জন্য উপজেলা পর্যায়ে সকল প্রশিক্ষণ ইউআরসিকেন্দ্রিক আয়োজনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

এছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিভাগ বহির্ভুত কাজে কম জড়ানো, নব্য সরকারি ও পূর্বের সরকারি স্কুলের মধ্যে ব্যাপক হারে শিক্ষক বদলি করার মাধ্যমে (প্রধান শিক্ষকসহ) বিদ্যালয়গুলোর মানের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনা, শিক্ষক বদলিতে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ, অনলাইনের মাধ্যমে বদলি চালুকরণ, কোনো শিক্ষক এক বিদ্যালয়ে পাঁচ বছরের বেশি কর্মরত থাকলে অন্য বিদ্যালয়ে বদলির নীতিমালা করা, প্রধান শিক্ষকদের উপজেলার বাইরে বদলি করার ব্যবস্থা করা, প্রতিদিন ছয়টির পরিবর্তে চারটি বিষয়ে পাঠদান করা, শিশুর সার্বিক বিকাশের জন্য মূল শিক্ষাক্রমের পাশাপাশি সক্রিয়ভাবে সহশিক্ষাক্রমিক কার্যাবলীর উপর গুরুত্ব দেয়া, সব স্কুলে মিড-ডে মিল ও স্কুল-ফিডিং (বিস্কুট) কার্যক্রম চালুকরণ, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের উপবৃত্তির টাকার পরিমাণ বৃদ্ধি করা বা বিশেষ ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করা, শহরে/পৌর এলাকায় এবং ভালো যোগাযোগসম্পন্ন স্কুলে প্রয়োজনের অতিরিক্ত শিক্ষক না রেখে অন্যত্র বদলি করে শিক্ষক-চাহিদা সমন্বয় করাসহ কিছু মৌলিক বিষয় সংস্কার করা জরুরি।

করোনা মহামারির জন্য আমাদের শিশুশিক্ষা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। এই অনাকাক্সিক্ষত এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তাই আমাদের বিকল্প পথ খুঁজতে হচ্ছে। প্রাথমিক শিক্ষার সকল পর্যায়ে যোগাযোগ রক্ষা এবং প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা প্রদানের নিমিত্ত বিভিন্ন টুলস প্রণয়ন ও অ্যাপসভিত্তিক অনলাইন কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় মাঠপর্যায়েও এ সব অনলাইন কার্যক্রম চালু রয়েছে। সংসদ বাংলাদেশ টিভিতে কোমলমতি শিশুদের জন্য শ্রেণিকার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। বাংলাদেশ বেতারের মাধ্যমে ‘ঘরে বসে শিখি’ কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অনলাইন প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও চলমান আছে। আশা করা যায় স্বল্প সময়ের মধ্যে আমরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারবো এবং বিদ্যালয়গুলো খোলে দেয়া হবে।

শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক, সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তি, রাষ্ট্র সকলের দৃষ্টিভঙ্গিতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনয়ন করে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় কোমলমতি শিশুদের জন্য মানসম্মত ও একীভূত প্রাথমিক শিক্ষার পথকে সুগম করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে শিক্ষা সুযোগ নয়, অধিকার। শিক্ষা পণ্য নয়, সেবা। আর শিক্ষকতা চাকরি নয়, পেশা- মহান পেশা।

লেখক:
শরীফুল্লাহ মুক্তি
কলাম লেখক,
শিক্ষা-গবেষক ও ইন্সট্রাক্টর,
উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি)

দেখা হয়েছে: 247
বিশ্বে করোনা ভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৫৫০,৩৩০
সুস্থ
৫০৩,০০৩
মৃত্যু
৮,৪৬২
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
ফেইসবুকে আমরা

সর্বাধিক পঠিত
এই মাত্র প্রকাশিত
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
মোবাইলঃ ০১৭৩৩-০২৮৯০০
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৭৮৫৫৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অস্থায়ী কার্যালয়ঃ ১নং সি. কে ঘোষ রোড, ৩য় তলা, ময়মনসিংহ।
(৭১ টিভির আঞ্চলিক কার্যালয়)।

The use of this website without permission is illegal. The authorities are not responsible if any news published in this newspaper is defamatory of any person or organization. Author of all the writings and liabilities of the author