|

গৌরীপুরে একদিনে চার গরুর মৃত্যুতে পাগলপ্রায় শারমিন

প্রকাশিতঃ ১১:৩৯ অপরাহ্ন | অক্টোবর ১০, ২০২২

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি।
ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌর শহরের কৃষ্টপুর মহল্লার শারমিন আক্তার (৩২) নামে এক গৃহবধূর চারটি গরু মারা গেছে। গত শনিবার সকাল থেকে মধ্যরাতের মধ্যে ওই গৃহবধূর বাড়িতে চারটি গরু মারা যায়। ক্ষতির পরিমাণ তিন লাখ টাকার বেশি বলে দাবী করেন তিনি। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন শারমিন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শারমিন আক্তারের স্বামী সেলিম মিয়া পেশায় রাজমিস্ত্রি। সংসারের অভাব-অনটন থাকায় শারমিনের বাবা আট বছর আগে মেয়ের সংসারে একটি গাভী দেন। গাভী লালন-পালনে বছর ঘুরতেই শারমিনের গোয়ালে গরুর সংখ্যা বাড়তে থাকে। গত কয়েক বছরে তিনি কয়েকটি গরু বিক্রি করেছেন। সর্বশেষ তার গোয়ালে পাঁচটি গরু ছিল। গত শুক্রবার শারমিনের ছেলে বাড়ির পাশের একটি ফিসারী থেকে গরুর খাবারের জন্য ঘাস নিয়ে আসে। ওই ঘাস খাওয়ার পর থেকেই গরুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ে। শনিবার সকাল সাতটায় একটি অসুস্থ গাভী মারা যায়। পরে ওইদনি দিবাগত রাত পৌনে বারোটার মধ্যে পর্যায়ক্রমে অসুস্থ আরো দুইটি বকনা গরু ও একটি ষাঁড় মারা যায়।

শারমিন আক্তার বলেন, গরু ছিল আয়ের একমাত্র অবলম্বন। স্বপ্ন ছিল গরু বিক্রি করে ঘর তুলবো।  সেই স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে। যেদিন ফিসারীর ঘাস গরুকে খাওয়ানো হয় ওইদিন ফিসারীতে কীটনাশক প্রয়োগ করা হয়েছি। আমার ধারণা বিষক্রিয়ায় গরুর মৃৃত্যু হয়েছে।

ফিসারী মালিক সাইদুল ইসলাম বলেন, ফিসারীতে ওইদিন গ্যাসের ডোজ আর মাছের উকুন নাশক ওষুধ দেয়া হয়েছিল। গরু কি কারণে মরছে আমি বলতে পারবো না।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নাজিমুল ইসলাম বলেন, মৃত গরুগুলোর শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানা যাবে কি কারণে গরুগুলোর মৃত্যু হয়েছে।

গৌরীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম বলেন গরুর মৃত্যুর খবর শোনেছি। ভুক্তভোগী পরিবার থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

দেখা হয়েছে: 134
ফেইসবুকে আমরা

সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
মোবাইলঃ ০১৭৩৩-০২৮৯০০
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৭৮৫৫৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অস্থায়ী কার্যালয়ঃ ১নং সি. কে ঘোষ রোড, ৩য় তলা, ময়মনসিংহ।
(৭১ টিভির আঞ্চলিক কার্যালয়)।

The use of this website without permission is illegal. The authorities are not responsible if any news published in this newspaper is defamatory of any person or organization. Author of all the writings and liabilities of the author